ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদক পদে লড়ছেন যারা

রাজনীতি

২৭ বছর পর নির্বাচিত নেতৃত্ব পেতে যাচ্ছে জাতীয়বাদী ছাত্রদল। কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটাভুটির মাধ্যমে ১৪ সেপ্টেম্বর নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে। এদিন সংগঠনটির শীর্ষ দুই পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটগ্রহণ হবে।




যাতে সারা দেশের ছাত্রদলের ১১৭টি সাংগঠনিক ইউনিটের ৫৮০ জন কাউন্সিলর ভোট দেবেন।

নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের লক্ষ্যে এরইমধ্যে মনোনয়ন ফরম বিক্রি ও জমা নেয়ার পর্ব শেষ হয়েছে। শীর্ষ দুই পদের জন্য ৭৬ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন।

এর মধ্যে সভাপতি পদে ২৭ জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ৪৯ জন। এই দুই পদে ১০৮ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন।

মঙ্গলবার মনোনয়ন ফরম বিক্রি ও জমা দেয়ার দ্বিতীয় ও শেষ দিনে প্রার্থীরা নিজেদের অনুসারী আর সমর্থকদের নিয়ে শোডাউন করে মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

এ উপলক্ষে সকাল থেকেই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পুরো এলাকায় সংগঠনের নেতাকর্মীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। নেতাকর্মীদের ভিড়ে সরগরম ছিল বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়।

ছাত্রদলের কাউন্সিল ঘিরে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে এক ধরণের উচ্ছ্বাস কাজ করছে। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। সাবেক ছাত্রনেতারা কাউন্সিল তদারক করায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন পদ প্রত্যাশীরা।

তারা এবার নির্বাচিত নেতৃত্বের মাধ্যমে বিএনপির ভ্যানগার্ড হিসেবে পরিচিত ছাত্রদলের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনার বিষয়ে আশাবাদী।

এবার সিন্ডিকেট ভেঙে সরাসরি ভোটে নেতৃত্ব নির্বাচন করায় বহু ছাত্রনেতা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আসার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। যেটির প্রমাণ পাওয়া গেছে তাদের ফরম কেনা ও জমা দেয়ার মধ্য দিয়ে।

সভাপতি পদপ্রার্থী যারা:
আসাদুল আলম টিটু,
কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ,
আল মেহেদি তালুকদার,
মামুন খান,




হাফিজুর রহমান,
সাজিদ হাসান বাবু,
আশরাফুল আলম ফকির লিংকন,
আজিম উদ্দিন মেরাজ,
মো. ইলিয়াস,
মাহমুদুল হাসান বাপ্পি,
তানভীর রেজা রুবেল,
এবিএম মাহমুদ আলম, এম আরজ আলী শান্ত,
সুরুজ মণ্ডল,
আবদুল মাজেদ,
মাইনুল ইসলাম,
ফজলুর রহমান,
এরশাদ খান,




মুহাম্মদ ফজলুল হক নিরব,
আরাফাত বিল্লাহ খান,
এসএম আল আমিন,
জুয়েল মৃধা,
আবদুল হান্নান,
শামীম হোসেন,
এসএএম আমিরুল ইসলাম,
সুলায়মান হোসাইন ও আল আমিন কাউছার।

সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী যারা: এই পদে ৪৯ জন ছাত্রনেতা মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। তারা হলেন-
সাইফ মাহমুদ জুয়েল হাওলাদার,
আমিনুর রহমান,
মো. হাসান (তানজিল হাসান),
ইকবাল হাসান শ্যামল,
শেখ আবু তাহের,
জোবায়ের আল মাহমুদ রিজভী,
কারীমুল হাই নাঈম,
রিয়াজ মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন,
ওমর ফারুক শাকিল চৌধুরী,
সিরাজুল ইসলাম,
সাজ্জাদ হোসেন রুবেল,
আবদুল মান্নান,




নাদিয়া পাঠান পাপন,
এবিএম বাকির জুয়েল,
মিজানুর রহমান শরীফ,
ওমর ফারুক,
আলাউদ্দিন খান,
রাশেদ ইকবাল খান,
ইমদাদুল হক মজুমদার,
নাইম হাসান,
কেএম সাখাওয়াত হোসেন,
শাহনেওয়াজ,
এএএম ইয়াহইয়া,
ডালিয়া রহমান,
সোহেল রানা,
মহিনউদ্দীন রাজু,
আরিফুল হক,




রাকিবুল ইসলাম রাকিব,
মোস্তাফিজুর রহমান,
আসাদুজ্জামান রিংকু,
আবুল বাশার,
মিজানুর রহমান সজীব,
জুলহাস উদ্দিন,
মিজানুর রহমান,
জাকিরুল ইসলাম জাকির,
সাদিকুর রহমান সাদিক,
আবদুল মোমেন মিয়া,
কাজী মাজহারুল ইসলাম,
আজিজুল হক সোহেল,
শেখ মো. মশিউর,
জামিল হোসেন,
তবিবুর রহমান সাগর,
মাজেদুল ইসলাম,




মাহমুদুল আলম শাহিন,
নাজমুল হক হাবীব,
জহিরুল ইসলাম (দিপু পাটোয়ারি),
আনিসুর রহমান সুমন,
এমএম বাবুল আক্তার শান্ত ও মুন্সি আনিসুর রহমান।





ছাত্রদলের মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার বিষয়টি জানিয়ে ছাত্রদলের সাবেক দফতর সম্পাদক আবদুস সাত্তার পাটোয়ারি যুগান্তরকে বলেন, সর্বমোট ৭৬টি ফরম জমা পড়েছে। ২২ থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত পাঁচ দিন জমাকৃত মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করবে ফজলুল হক মিলনের নেতৃত্বে বাছাই কমিটি। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৩১ আগস্ট। চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ ২ সেপ্টেম্বর। প্রার্থীদের প্রচারণা ৩ থেকে ১২ সেপ্টেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত।



3 thoughts on “ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদক পদে লড়ছেন যারা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *